ঢাকা, ২১ এপ্রিল ২০২৪, রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

বিবিসির বিশ্লেষণ

গাজায় ৮৯ দিনে নিহতের সংখ্যা মোট জনগোষ্ঠীর ১ শতাংশ

অনুসন্ধান | ডেস্ক নিউজ

(৩ মাস আগে) ২৪ ডিসেম্বর ২০২৩, রবিবার, ৬:৩৬ অপরাহ্ন

banglahour

গাজা উপত্যকা ২০০৭ সাল থেকে শাসন করে আসছে হামাস। কিন্তু ৭ই অক্টোবর ফিলিস্তিনি এই যোদ্ধাদের হামলা সবাইকে হতবাক করে দিয়েছে। মাত্র আড়াই মাস আগেও যেখানে শিশুরা খেলাধুলা করত এবং স্কুলে যেত, সেই পুরো এলাকা পরিণত হয়েছে বিশাল ধ্বংসস্তূপে। সেখানে নেই কোনো প্রাণচাঞ্চল্য।

যেকোনো যুদ্ধাঞ্চলে নিহতের সংখ্যা গণনা করাটা একটা চ্যালেঞ্জ। গাজা উপত্যকায় গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের বোমা হামলা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ২০ হাজার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। গাজার চিকিৎসকেরা বলেছেন, নিহতের প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। কারণ, বিধ্বস্ত ভবনের ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়ে থাকা মৃতদেহ এবং হাসপাতালে যেসব মৃতদেহ পৌঁছায়নি, সেগুলো হিসাবের আওতায় আসেনি।

গাজার বাসিন্দা ২২ লাখ। এর মধ্যে ইসরায়েলের হামলায় নিহত হয়েছেন ২০ হাজার। অর্থাৎ গাজার মোট জনগোষ্ঠীর প্রায় ১ শতাংশ সংঘাতে নিহত হয়েছেন।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুসারে, সংঘাতের শুরু থেকে এ পর্যন্ত (৭ দিনের যুদ্ধবিরতি বাদ দিয়ে) প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৩০০ মানুষ নিহত হয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক জরুরি ব্যবস্থাপনা–সংক্রান্ত পরিচালক রিচার্ড ব্রেনান বলেছেন, তিনি নিহতের এ সংখ্যাকে বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করেন।

বিবিসির তথ্য যাচাই দলের (ভেরিফাই) পক্ষ থেকে গাজায় নিহতের সংখ্যা যাচাইয়ের পাশাপাশি বিশ্বের অন্য যুদ্ধ-সংঘাতের সঙ্গে এর তুলনা এবং গাজায় তরুণদের ওপর এ যুদ্ধের প্রভাব নির্ণয়ের চেষ্টা করা হয়েছে।

উচ্চ মৃত্যুহার

ইরাক যুদ্ধ, কলম্বিয়ার গৃহযুদ্ধ, ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যকার আগের যুদ্ধগুলোসহ বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন সংঘাতে নিহতের সংখ্যা নিয়ে গবেষণা করেছেন অধ্যাপক মাইকেল স্পাগাট। ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের চলমান যুদ্ধ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এ যুদ্ধে প্রাণহানির সংখ্যা অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বাড়ছে।’ তিনি আরও বলেন, ২০০৮ সাল থেকে গাজায় যতগুলো যুদ্ধ হয়েছে, সেগুলোর দিকে ফিরে তাকালে দেখা যাবে, চলমান যুদ্ধে নিহতের সংখ্যা এবং হত্যাকাণ্ডের বিচারহীনতার প্রবণতা নজিরবিহীন।

গাজা উপত্যকায় প্রাণহানি বেশি হওয়ার আরেকটি কারণ হলো—এটি অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। যুদ্ধ শুরুর আগে সেখানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৫ হাজার ৭০০ জনের বেশি মানুষের বসবাস ছিল।

গবেষণা সংস্থা অ্যাকশন অন আর্মড ভায়োলেন্সের তথ্যানুসারে, ২০১১ ও ২০২১-এর মাঝামাঝি সময়ে বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন সংঘাতের সময় জনবহুল এলাকায় বিস্ফোরক অস্ত্র ব্যবহারের কারণে যতজন নিহত হয়েছেন, তার মধ্যে গড়ে ৯০ শতাংশই বেসামরিক নাগরিক।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী বলেছে, বেসামরিক লোকজনের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে তারা পূর্বসতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। যেখানে সম্ভব, সেখানে হামলার আগে সতর্ক করা হচ্ছে।

ইসরায়েলের দাবি, গাজার বেসামরিক মানুষদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে হামাস।

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, এখন পর্যন্ত নিহত ব্যক্তিদের প্রায় ৭০ শতাংশ নারী ও শিশু

শিশুদের ওপর কি প্রভাব ফেলছে?

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, এখন পর্যন্ত নিহত ব্যক্তিদের প্রায় ৭০ শতাংশ নারী ও শিশু। গাজা উপত্যকার শিশুদের ওপর এ যুদ্ধের ধ্বংসাত্মক প্রভাব পড়ছে। ২০২২ সালে মন্ত্রণালয়টির হিসাব অনুসারে, গাজা উপত্যকার মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকই ১৮ বছরের কম বয়সী।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, সংঘাতে এখন পর্যন্ত ৫২ হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়েছেন। তবে আহত শিশুর সংখ্যা ঠিক কত, তার সর্বশেষ হিসাব পাওয়া যায়নি। গত ৩ নভেম্বর নাগাদ গাজায় হামলায় ২৪ হাজার ১৭৩ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৮ হাজার ৬৭ শিশু, ৫ হাজার ৯৬০ নারী ও ১০ হাজার ১৪৬ পুরুষ।

জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ বলেছে, গাজা এখন শিশুদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক জায়গা।

কীভাবে লড়াই হচ্ছে, সে অনুযায়ী প্রতিটি সংঘাতেরই আলাদা বৈশিষ্ট্য থাকে। তবে বিবিসি যে বিশেষজ্ঞদের সাক্ষাৎকার নিয়েছে, তাঁরা মনে করেন, সম্প্রতি যেসব বড় যুদ্ধ হয়েছে, তার মধ্যে গাজার যুদ্ধের আকার অপেক্ষাকৃত বড়।

পেন্টাগনের সাবেক গোয়েন্দা বিশ্লেষক মার্ক গারলাসকো বলেন, ‘এমন জনবসতিপূর্ণ ছোট কোনো এলাকায় একই মাত্রায় উচ্চ শক্তিসম্পন্ন বিস্ফোরক ব্যবহারের ঘটনা খুঁজতে গেলে এবং তুলনা করতে হলে আমাদের ভিয়েতনাম যুদ্ধের দিকে ঘুরে তাকাতে হবে। ১৯৭২ সালে বড়দিনে এ বোমা হামলা চালানো হয়েছিল। অপারেশন লাইনব্যাকার টু নামের ওই অভিযানের সময় হ্যানয়ে প্রায় ২০ হাজার টন বোমা ফেলা হয়েছিল।’

ওই হামলায় ভিয়েতনামের ১ হাজার ৬০০ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়।

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com