ঢাকা, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

মার্কিনীদের ভিসা নীতি ও মাতব্বরি

মতামত | মোহিত চৌধুরী

(৮ মাস আগে) ৮ জুন ২০২৩, বৃহস্পতিবার, ৫:৪৭ অপরাহ্ন

banglahour

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি পাকিস্তানের পক্ষ অবলম্বন করেছিল। অর্থ অস্ত্র গোলাবারুদ কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে ছিল বাংলাদেশের সরল প্রাণ নিরীহ বাঙালি নিধনের জন্য। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পরাজয় ঠেকাতে সপ্তম নৌবহর পাঠিয়েছিল। জাতিসংঘে যুদ্ধ বন্ধে যুদ্ধ বিরতি প্রস্তাব উপস্থাপন করেছিল। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন (রাশিয়ার) ভেটো দেওয়ার ফলে দুরভিসন্ধিমূলক প্রস্তাব বাতিল হয়ে যায়। মিত্র বাহিনীর নিকট পাকিস্হান সেনাবাহিনী আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়।ফলশ্রুতিতে উনিশশো একাত্তর ষোল ডিসেম্বর ত্রিশ লক্ষ শহীদ প্রাণ বিসর্জনে দু লক্ষ মা -বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে  পৃথবীর মানচিত্র থেকে ছিঁড়ে নেওয়া এক খন্ড ভূমি। বাংলাদেশ নামক জাতিরাষ্ট্র বিজয় অর্জন করে। ষোল ডিসেম্বর বাঙালির আনুষ্ঠানিক জাতিস্বত্তা প্রতিষ্ঠার দিবস। বিশ্ব মোড়ল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং পাকিস্তান সেনাবাহিনী এই পরাজয় কখনও মেনে নিতে পারেনি।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তদানিন্তন প্রেসিডেন্ট নিক্সন প্রশাসনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার সদ্য স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে  তলাবিহীন ঝুড়ি বলে তীব্র ক্ষোভ এবং ঘৃণা নিক্ষেপ করেছিলেন।

বাঙালির মহান মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জীবন ব্যাপী সংগ্রাম করে , জেল জুলুম হুলিয়া এমন কি আগরতলা ষড়যন্ত্র রাস্ট্রদ্রোহ মামলায় আসন্ন মৃত্যু দন্ডের  ঝুঁকি নিয়ে ও তিনি বাংলার পথে প্রান্তরে ছাত্র শিক্ষক কৃষক শ্রমিক মেহনতী মানুষদের ভাষা ভিত্তিক বাঙালি জাতীয়তাবাদের দর্শনে সুদৃঢ় ঐক্যের বন্ধনে আবদ্ধ করেছেন। বাঙালির মানবাধিকার বাক স্বাধীনতা। স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব অর্জনে গনতন্ত্র সমাজতন্ত্র ধর্মনিরপেক্ষতা বাঙালি জাতীয়তাবাদের মতো আবেদনময়ী দর্শন গুলো সাড়ে সাতকোটি মানুষের নিকট পৌঁছে দিয়েছিলেন। 

তার এক আঙুলের নির্দেশে সাড়ে সাতকোটি মানুষ উঠ বস করতেন। আর ঐ মানুষ গুলো বলতেন শেখ মুজিবের পথ ধর বাংলাদেশ স্বাধীন কর। বাঙালিকে তিনি আঙুল তুলে কথা বলতে শিখিয়েছেন। পৃথিবীর ইতিহাসে আঙুল তুলে কথা বলা ধারাটির প্রবর্তক তিনি। 

বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে ত্রিশ লক্ষ বাঙালি বুকের তাজা রক্ত দিয়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছে। পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর বিনিময়ে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব অর্জনকারী দেশ বাংলাদেশ।  বাংলাদেশ পৃথিবীর কিংবদন্তি।

বঙ্গবন্ধু সমকালীন পৃথিবীর রাজনীতি কাব্যের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বিষয় টি নিক্সন  হেনরি কিসিঞ্জার জুলফিকার আলি ভুট্টো গং মেনে নিতে পারে নাই। দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে উনিশশো পঁচাত্তরের পনের আগষ্টে বঙ্গবন্ধু কে হত্যা করে একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছে। 

সেখানেই শেষ নয় সামরিক এস্টাবলিশমেন্টের ক্ষমতা দখলে গনতন্ত্র সমাজতন্ত্র ধর্মনিরপেক্ষতা বাঙালি জাতীয়তাবাদের আশীর্বাদ চিরতরে   নির্বাসনে পাঠানো হয়। জাতির লঁলাটে নেমে আসে ঘোর অন্ধকারের অমানিশা। স্বাধীনতা বিরোধী প্রতিবিপ্লবী শক্তি রাজাকার আলবদরও আল শামস  মৌলবাদ জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসবাদ সাম্প্রদায়িকতা স্বৈরতন্ত্র অনির্বাচিত অগণতান্ত্রিক সরকারের ধারাবাহিকতায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুল্যবোধ নির্বাসিত হয়। নব্য ধনিক শ্রেণী স্মাগলার চোরাকারবারি ব্ল্যাকার সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণে চলে যায় বাংলাদেশের সমাজ সভ্যতা সংস্কৃতি রাজনীতি অর্থনীতি ধর্মনীতি সমাজনীতি সমরনীতি।

অথচ, স্ব সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে কোন জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হলে। সংশ্লিষ্ট জাতিরাষ্ট্রের  জাতীয় স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব সুনিশ্চিত করতে।  বিপ্লবের মূল মন্ত্রের কার্যকারিতার ধারাবাহিকতার জন্য প্রতিবিপ্লবীদের সমূল বিনাশ করতে হয় আরেকটি বিপ্লবের মাধ্যমে। তবেই বিপ্লবের মূল মন্ত্রের ধারাবাহিকতা মহাকালের গহ্বরে সঠিক গন্তব্যে পৌঁছে যায়। যেমন রুশ বিপ্লব চৈনিক বিপ্লব ফরাসী বিপ্লব কিউবা বিপ্লব।

বাংলাদেশ নামক জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পরে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব এবং রাস্ট্র বিরোধী প্রতিবিপ্লবীদের সমূল বিনাশ করতে পারেনি বাংলাদেশ। এজন্যই ক্রমাগত ভাবে এখানে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রাস্ট্র বিরোধী প্রতিবিপ্লবী শক্তির চক্র সৃষ্টি হয়েছে। একাত্তরের পরাজিত বহিঃশক্তি এবং রাস্ট্র বিরোধী প্রতিবিপ্লবী শক্তির যৌথ অপতৎপরতা অস্থিতিশীলতা সহ রাজনৈতিক এস্টাবলিশমেন্টের খেলায় মেতেছে বাংলাদেশ কে নিয়ে।

বিশ্ব মোড়ল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল মন্ত্র মানবাধিকার ও গনতন্ত্র।  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণ বৈষম্য মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। স্কূল কলেজ বিপনিবিতান উপাসনালয়ে নির্বিচারে মানুষ হত্যা। কালো চামড়ার মানুষদের হত্যা নির্যাতন। এক খন্ড স্বাধীন সার্বভৌম ফিলিস্তিনের জন্য ফিলিস্তিনীদের মৃত্যুপন সংগ্রাম। ইসরায়েল কর্তৃক ফিলিস্তিনের ভূমি দখল হত্যা গুম গ্রেফতার বাড়িঘর উচ্ছেদ   মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন হচ্ছে সেখানে। মিয়ানমারের অসভ্য অমানবিক নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। দেশান্তরী হয়েছে। এক খন্ড আবাস ভূমি ও নাগরিকত্ব প্রয়োজন রোহিঙ্গাদের। ফিলিস্তিনীদের। বৈষম্যহীন মার্কিন সমাজ সভ্যতায় ঐ কালো চামড়ার মানুষেরা শান্তি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়।

বিশ্ব মোড়ল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সে-সব মানবাধিকার না দেখে পৃথিবীর দেশে, দেশে যুদ্ধ ব্যবসা করছে।  ইরাক সিরিয়া লিবিয়া আফগান ধ্বংস করে ফেলেছে।  মিয়ানমারের জান্তা সরকারের সঙ্গে অস্ত্র ব্যবসা করছে। ইউক্রেনে অস্ত্র গোলাবারুদের ব্যবসা করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিদ্বন্দ্বী পরাশক্তির গুলোর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নেতৃত্ব রক্ষা করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভৌগোলিক কৌশলগত রাষ্ট্র গুলোর অন্ধ সমর্থন চায়। নিজেদের অনুগত সরকার চায়। কোন জাতীয়তাবাদী চেতনার রাজনৈতিক সংগঠনের সরকার তাদের পছন্দ নয়। তাদের পছন্দ অরাজনৈতিক ব্যক্তি যেমন ইউক্রেনের কৌতুক অভিনেতা রাস্ট্রপতি জেলেনস্কি। আফগানের সাবেক রাস্ট্রপতি হামিদ কারজাই। বাংলাদেশে ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস। প্রয়োজনে অভিনয়শিল্পীদের মানদণ্ড বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন ধরনের পুরস্কার প্রদান। অধিকতর গ্রহণযোগ্য করে কূটকৌশল বা বল প্রয়োগে সরকার পরিবর্তন। অনুগতদের দিয়ে সরকার পরিচালনা করে মার্কিনীদের স্বার্থ সংরক্ষণ করতে মরিয়া।

বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কণ্যা। পৃথিবীর কিংবদন্তি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। জাতির দার্শনিক নেতৃত্ব বাংলাদেশের অবিস্মরণীয় চ্যালেঞ্জিং নেতৃত্ব। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় মেধাবী মুখের প্রতিচ্ছবি একজন সৃজনশীল চেতনার জীবন সংগ্রামী মহীয়সী নারী।তাঁর গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে।

পদ্মাসেতু নির্মাণ মেট্রোরেল প্রকল্প কর্ণফুলী টানেল বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ। দেশের ইতিহাসে প্রথম একসঙ্গে একশো সেতুর উদ্বোধন। সাবমেরিন ক্রয় সহ আর্থসামাজিক সুরক্ষা জনগনের উন্নত জীবন শিল্প সম্ভাষণ চর্চায় প্রযুক্তিগত উন্নয়ন অগ্রগতি সমৃদ্ধি এসেছে বাঙালির মানসপটে। পৃথিবী ব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে।

একাত্তরের পরাজিত বহিঃশক্তি স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিরোধী প্রতিবিপ্লবী শক্তি এবং পদ্মাসেতু বিরোধী চক্র ত্রয়ী শক্তিজোট শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন স্মার্ট সরকারের সাফল্য গাঁথা মেনে নিতে পারছেনা। সরকার কে বিব্রত করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে জেএসপি সুবিধা বন্ধ। নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সন্ত্রাসবাদ সাম্প্রদায়িকতা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়ে যাওয়া বাহিনীর প্রতি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু অংশগ্রহণমূলক নিরপেক্ষতার কথা বলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল মন্ত্র মানবাধিকার গনতন্ত্রের কথা বলে অরাজনৈতিক অথচ, ভিন্ন চরিত্রের লেভেলে পূর্ণমাত্রার রাজনীতিক ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস কে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু নির্দেশিত পররাষ্ট্রনীতির পরিবর্তন করে মার্কিন বলয়ে রাখতে ভিসা নীতি প্রয়োগ করে সরকার কে চাপে রাখার কৌশল নিয়েছে।  

ফ্লোরেন্স সিটি ইটালী 
মঙ্গলবার সকাল ৮:০২ মিনিট 
৬ জুন ২৩ ইং

মতামত থেকে আরও পড়ুন

banglahour
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন
নভেম্বরে তফসিল, জানুয়ারিতে ভোট

সর্বশেষ

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com