ঢাকা, ১৫ জুন ২০২৪, শনিবার, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

"৫ই মে ২০১৩"

মতামত | আসিফ জামান সুমিত

(১ মাস আগে) ৫ মে ২০২৪, রবিবার, ৩:১৭ অপরাহ্ন

banglahour

প্রতি বছরই ৫ই আছে। বিগত বছরগুলিতেও এই দিন এসেছে। আগামীতেও ৫ই মে আসবে। তবে, বিশেষ করে ২০১৩ সালে ৫ই বেশ দাগ কেটে গেছে এদেশের মানুষের মনে। দিনটি ইতিহাসের পাতায় লেখা আছে দুইটি দিক থেকে। প্রথম দিকটি বলতে গেলে, সেটি হেফাজত লিখেছে। তাদের ভাষায় তারা অত্যাচারিত হয়েছে। সরকার বা পুলিশ অথবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের উপর নৃশংসতা চালিয়েছে। এখানে ২০২৩ সালে হেফাজতের আমিরের গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাতকার থেকে বলছি, ‘আজ ঐতিহাসিক ৫ ই মে। আমরা কখনোই আমাদের শহীদদের ভুলে যাব না; আমরা ভুলে যাব না নির্যাতিতদের কথা, গ্রেপ্তারকৃতদের কষ্টের কথা এবং গত দশ বছর ধরে মিথ্যা মামলার হয়রানিতে ভোগা মজলুমদের কথা।' বিপরীত ইতিহাস লেখা আছে, সেদিন কি ধংসাত্বক সংঘাতে জড়িয়েছিল হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। কিভাবে তা সামাল দিতে হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চৌকস সদস্যদের। কিভাবে তা মোকাবেলা করতে হয়েছে সরকার ও তার দায়িত্বশীল মন্ত্রীদের।

৫ই মে এর ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত আমি মাঠের গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে সংবাদ সংগ্রহে ছিলাম। ২০১৩ সালের সে সময়, বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই সংবাদ মাধ্যমে বড় খবর 'ঢাকা ঘেরাও' কর্মসূচি দিয়েছে হেফাজত ইসলাম। ৫ই মে কর্মসূচি। এর দুইদিন আগেই লালবাগে মুফতি ফজলুল হক আমিনীর মাদ্রাসায় অবস্থান নিয়েছেন সেসময় হেফাজত ইসলামের আমির আল্লামা আহমদ শফী ও মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী। দুইজনই বেশ আলোচিত হয়েছিলেন সেসময়ের দলটির কর্মসূচি নিয়ে। তাদের মনোভাব কি ছিল সেটা তাদের দিক থেকে আজও ধোঁয়াসা করে রাখা হয়েছে বলা চলে। কারণ হেফাজতের ৫ মের শেষ অংশের সঙ্গে তাদের অরাজনৈতিক সংগঠন দাবি একে বারেই বিপরীত বলা যায়। পর্যায়ক্রমে আসছি সে আলোচনায়। ঢাকা ঘেরাও কর্মসূচির দিন ফজরের নামাজের পর থেকে ঢাকার সবগুলো প্রবেশ পথে অবস্থান নেন হেফাজত ইসলামের কর্মী সমর্থকরা। 

২০১১ সালে এই সংগঠনটি, সর্বক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের সমঅধিকার নিশ্চিতের লক্ষ্যে গঠিত নারী উন্নয়ন নীতির তীব্র বিরোধিতা করে। 

২০১৩ সালে তারা ইসলাম ও রাসুলকে কটূক্তিকারী নাস্তিক ব্লগারদের ফাঁসি দাবি করে ব্যাপক আন্দোলন ও সমাবেশ শুরু করে। এ প্রেক্ষিতে তারা ১৩ দফা দাবি উত্থাপন করে। হেফাজতে ইসলামের এই দাবির কয়েকটি দফা সমালোচিত হলে পরবর্তীতে তারা সংবাদ সম্মেলনে ১৩ দফার ব্যাখ্যা প্রদান করে। 

হেফাজতে ইসলামের বক্তব্য অনুযায়ী তাদের দাবিগুলো ছিল:

১. সংবিধানে ‘আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ পুনঃস্থাপন এবং কুরআন-সুন্নাহবিরোধী সব আইন বাতিল করা।

২. আল্লাহ্, রাসুল ও ইসলাম ধর্মের অবমাননা এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে কুৎসা রোধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন পাস।

৩. শাহবাগ আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী স্বঘোষিত নাস্তিক এবং রাসুল এর নামে কুৎসা রটনাকারী ব্লগার ও ইসলামবিদ্বেষীদের সব অপপ্রচার বন্ধসহ কঠোর শাস্তিদানের ব্যবস্থা করা।

৪. ব্যক্তি ও বাকস্বাধীনতার নামে সব বেহায়াপনা, অনাচার, ব্যভিচার, প্রকাশ্যে নারী-পুরুষের অবাধ বিচরণ, মোমবাতি প্রজ্বলনসহ সব বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করা।

৫. ইসলামবিরোধী নারীনীতি, ধর্মহীন শিক্ষানীতি বাতিল করে শিক্ষার প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করা।

৬. সরকারিভাবে কাদিয়ানিদের অমুসলিম ঘোষণা এবং তাদের প্রচারণা ও ষড়যন্ত্রমূলক সব অপতৎপরতা বন্ধ করা।

৭. মসজিদের নগর ঢাকাকে মূর্তির নগরে রূপান্তর এবং দেশব্যাপী রাস্তার মোড়ে ও কলেজ-ভার্সিটিতে ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন বন্ধ করা।

৮. জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম মসজিদে দেশের সব মসজিদে মুসল্লিদের নির্বিঘ্নে নামাজ আদায়ে বাধাবিপত্তি ও প্রতিবন্ধকতা অপসারণ এবং ওয়াজ-নসিহত ও ধর্মীয় কার্যকলাপে বাধাদান বন্ধ করা।

৯. রেডিও- টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে দাড়ি-টুপি ও ইসলামি কৃষ্টি-কালচার নিয়ে হাসিঠাট্টা এবং নাটক- সিনেমায় নেতিবাচক চরিত্রে ধর্মীয় লেবাস-পোশাক পরিয়ে অভিনয়ের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের মনে ইসলামের প্রতি বিদ্বেষমূলক মনোভাব সৃষ্টির অপপ্রয়াস বন্ধ করা।

১০. পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশব্যাপী ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত এনজিও এবং খ্রিষ্টান মিশনারিগুলোর ধর্মান্তকরণসহ সব অপতৎপরতা বন্ধ করা।

১১. রাসুলপ্রেমিক প্রতিবাদী আলেম-ওলামা, মাদ্রাসার ছাত্র রাসুলপ্রেমিক জনতার ওপর হামলা, দমন-পীড়ন, নির্বিচার গুলিবর্ষণ এবং গণহত্যা বন্ধ করা।

১২. সারা দেশের কওমি মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক, ওলামা-মাশায়েখ ও মসজিদের ইমাম-খতিবকে হুমকি-ধমকি, ভয়ভীতি দানসহ তাঁদের বিরুদ্ধে সব ষড়যন্ত্র বন্ধ করা।

১৩. অবিলম্বে গ্রেপ্তারকৃত সব আলেম-ওলামা, মাদ্রাসাছাত্র ও রাসুলপ্রেমিক জনতাকে মুক্তিদান, দায়ের করা সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং আহত ও নিহত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণসহ দুষ্কৃতকারীদের বিচারের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি প্রদান। 

এই দাবিগুলো প্রচার নয় বরং এগুলো তুলে ধরার কারণ, তারা নিদের যে অরাজনৈতিক সংগঠন দাবি করেন। সেটার যৌক্তিকতা। এ ধরনের দাবিগুলো রাজনৈতিক সচেতন বা রাজনীতিতে আত্বপ্রকাশের অভিপ্রায় হিসেবে সে সময়ের সব মহল থেকেই বলা হয়েছে। 

এবার আগের প্রসঙ্গে আসি। ২০১৩ এর ৫ই মে এর ভোর থেকে সংবাদ সংগ্রহে আমার অবস্থান ঢাকার অন্যতম প্রবেশ পথ বাবু বাজার ব্রিজ এলাকা। বেশ বড় বড় মিছিলই বলা চলে ঢাকা থেকে কয়েকটি বের হয়ে অবস্থান নিচ্ছে ব্রিজটির অপর পাশে অর্থাৎ কেরানীগঞ্জ অংশে। আর ঢাকার বাইরে থেকেও মিছিলগুলো এসে জড়ো হয়েছে সেখানে। এদিকে, ঢাকার প্রবেশ মুখগুলোতে অবস্থান নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। অর্থাৎ র‍‍্যাব ও পুলিশ। তারকাঁটার ব্যারিকেড দিয়ে ঢোকার রাস্তা বন্ধ করা আছে। আমরা তারকাঁটার বাইরে গিয়ে লাইভ করছি। সহকর্মী কাওসার আমার পাশে দাঁড়িয়ে লাইভ করার সময় তাকে ঘিরে ধরা হলো। কোন একটা কথায় ক্ষুব্ধ হেফাজত কর্মীরা আমার পাশে তাকে মারা শুরু করলেন। আমি স্ট্যান্ডবাই আছি, টেলিভিশনের কর্মীরা বুঝবেন। অর্থাৎ প্রেজেন্টার আমার সঙ্গে সংযোগের লিঙ্ক বলছেন। তাই, দাঁড়িয়ে তার মার খাওয়া দেখলাম। আর মনে মনে আরও সতর্ক হলাম, শব্দ চয়নের জন্য। তার কারণ আমাকেও যত লোক ঘিরে দাঁড়িয়ে আছে, তারা একটি করে কিল বা চড় দিলেও আমাকে খুঁজে পাওয়া মুশকিল হয়ে যাবে। খুব ভয়ে এবং সতর্ক ও নিরপেক্ষভাবে লাইভ শেষ করলাম। কোন বিপদ ছাড়া লাইভ শেষেই দৌড়ে পুলিশ বেরিকেডের মধ্যে ঢুকলাম। সেসময় খেয়াল করলাম পুরো অংশের নেতৃত্বে আছেন হেফাজতে ইসলামের সাবেক প্রচার সম্পাদক মুফতি ফখরুল ইসলাম। তিনি হেফাজতের সম্মুখ সাড়ির নেতা সেসময় গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে বেশ পরিচিত মুখ। 

২০১৩ এর সময়টাতে যারা অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক ছিলেন, তাদের প্রায় প্রতি সপ্তাহেই হেফাজতের সংবাদ সংগ্রহে যেতে হতো রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর, লালবাগ, ভাটারা, যাত্রাবাড়ি। এই এলাকাগুলোতে হেফাজত মতাদর্শী মাদ্রাসা ও মসজিদ গুলোতে বা কখনও সামনের সড়কে তাদের কর্মসূচি কাভার করতে হতো। সেখানেই মূলত বিভিন্ন ইসলামী দল, বিভিন্ন ধরন বা পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে পরিচয় বা আলাপচারিতা। হেফাজতে ইসলামের সাবেক প্রচার সম্পাদক মুফতি ফখরুল ইসলামের সঙ্গে সেভাবেই পরিচয়। তিনি বেলা ১২টার দিকে বেরিকেডের ঢাকার বাইরে অংশে দাঁড়িয়ে আর আমি ভেতরের অংশে দাঁড়িয়ে। সেসময় বললেন, আমরা শাপলা চত্বরে সমাবেশের উদ্দেশ্যে রওনা হবো। আমার প্রশ্ন, তাহলে 'ঢাকা ঘেরাও' কর্মসূচির কি হলো? তিনি জানালেন, দলের উপর মহলে কথাবার্তা চলছে। আমরা দুপুরের দিকে ঢাকায় প্রবেশ করবো। 

বেলা ১টার আগেই ঠিক একই জায়গাতেই দাঁড়িয়ে তিনি জানালেন, বেলা দুইটায় ঢাকায় প্রবেশ করবেন তারা। আমি তখন পর্যন্ত অন্যান্য অংশের খবর তেমন জানি না। তবে, রাস্তা ফাঁকা থাকায় মাঝে বেলা ১১ টার দিকে একবার গুলিস্থান মতিঝিল এলাকায় ঘুরে যাই। তখনও মতিঝিল এলাকায় আহামরি খুব বেশি লোকের সমাগম হয়নি। সেসময় দেখি পল্টন ও জিপিও সড়কের অংশে কয়েকটি গাড়ির কাঁচ ভেঙে পরে আছে। শুনলাম কিছু সময় আগেই একটা মিছিল বের হয়েছিল। তবে, পুলিশ ধাওয়া দিলে গাড়ির কয়েকটি ঢিল ছুড়েই তারা চলে যায়। এবার বেলা দুইটায় বাবুবাজার ব্রিজ এলাকা থেকে হেফাজতের মিছিল প্রবেশ শুরু করল। আগেই বলেছি, ঢাকার প্রবেশ পথগুলোতে প্রচুর জনসমাগম ঘটিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। সে তুলনায় বেরিকেডের ভেতরে দাঁড়িয়ে থাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য সংখ্যা ছিল নগন্য। তাই কোন বাধা দেয়ার ঘটনা ঘটে নি। বরং মনে হয়েছে হেফাজত কর্মীদের মতিঝিল যাওয়ার অনুমতি মিলেছে। মিছিল প্রবেশ করছে বাবু বাজার এলাকা থেকে সামনে কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমেরা গাড়ি। আমাদের ভিডিও জার্নালিস্টরা মিছিলের ভিন্ন ভিন্ন অ্যাঙ্গেলের ছবি নিচ্ছেন। অফিস থেকে আমাকে জানানো হলো তিনটায় মতিঝিল এলাকা থেকে লাইভ শুরু করতে হবে। কিন্তু গুলিস্তান এলাকায় আমরা পৌছানোর সঙ্গে সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু।সেখান থেকে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পরে বায়তুল মোকাররম মসজিদের দক্ষিণ গেট এলাকায়। শুরুতে সংঘর্ষ শুরু হেফাজত বিরোধীদের সঙ্গে। সংখ্যায় হেফাজত কর্মী বেশি থাকায় সে সংঘর্ষ থামাতে এসে পুলিশ হয় তাদের প্রতিপক্ষ। 

এবার আমরা হাঁটতে হাঁটতে এগোতে থাকি বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটের দিকে। কারণে সেসময় ইসলামী দলগুলাের বায়তুল মোকাররম কেন্দ্রিক সব আন্দোলন শুরু হতো এই অংশটি থেকে। আমরা পৌছানোর সময়ও মসজিদের গ্রিল দেয়া প্রাচীরের মধ্যেই তখনও হেফাজত নেতা কর্মীরা নানান স্লোগান দিচ্ছিলেন। তবে, কিছু সময়ের মধ্যে তারা গেটের বড় ফটকটির তালা ভেঙে বাইরে চলে আসেন। শুরুতে লাঠিচার্জ ও ধাওয়া দিয়ে পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করেন। কিন্তু পরবর্তিতে মতিঝিল ও দৈনিক বাংলা এলাকা থেকে আরও কর্মীরা তাদের সঙ্গে যোগ দেয়ায় পুলিশ পেছনে এসে অবস্থান নেন পল্টন মোড়ে। আমরা গণমাধ্যম কর্মীরা এই এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পিছনে অবস্থান নেই। অফিস থেকে সেসময় আমার সঙ্গে কথোকথন করে জিপিও, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, নাইটএঙ্গেল মোড়, নটরডেম কলেজের সামনের সড়কসহ বেশকিছু এলাকায় রিপোর্টার পাঠায়। উভয়ের সংঘর্ষ ও টিয়ারসেলের ভয়াবহতা এতো বেশি ছিল যে, আমার অফিসের গাড়ি চালক মামুন ভাই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে আমার জ্যেষ্ঠ সহকর্মী শাকেরা আরজু ও তার সঙ্গে থাকা ভিডিও জার্নালিস্ট ও গাড়ি চালক তাকে পানি ঢেলে তার জ্ঞান ফেরানোর চেষ্টা চালিয়ে যান। 

সংঘর্ষ চলার কিছু সময় পরই পুলিশের সঙ্গে যোগ দেন র‍‍্যাব সদস্যরা। তারাও আগ্রাসী হয়ে ওঠা হেফাজত কর্মীদের কিছুতেই দমাতে পারছিলেন না। বরং তাদের পল্টন মোড় এলাকা পর্যন্ত থামিয়ে রাখা সম্ভব হয়েছিল। এখানে বলে রাখা ভালো, রাবার বুলেট ঠেকানোর জন্য পুলিশের বিপরীতে ঢেউটিন ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। তবে, তার যোগান কোথা থেকে মিলেছিল? এই প্রশ্নের উত্তর আজও পাইনি। সংঘর্ষ চলার সময়ই আমরা দেখি সড়কের মাঝে মাঝে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। পুলিশ জলকামান দিয়ে সেগুলো নেভানোর জন্য এগোলেও প্রচন্ড ইট পাটকেল নিক্ষেপে আবারও তাদের পিছনে ফিরতে হয়। ফুটপাতের বই আগুনে পুড়ছে, অলিম্পিক ভবনের সমনেও আমরা আগুনের বড় ফুলকি দেখি। এধরনের তান্ডবের মধ্যে আমি সহকর্মী ভিডিও জানার্লিস্টকে নিয়ে পল্টন থেকে বায়তুল মোকাররমের দিকে এগোনোর চেষ্টা করি। কিন্তু বিধিবাম! আবার ধাওয়া খেয়ে পেছনে ফিরে দৌড়ানোর সময় কিছু একটাতে পা আটকে পরে যাই। সে অবস্থাতে নিজেকে সামাল দিয়ে উঠার শক্তি হারিয়ে ফেলি। পল্টন মোড়ে এক জুতার দোকানি আমাকে কোনমতে টেনে নেন তার দোকানে। পানি খাইয়ে বসিয়ে রাখেন তার দোকানের ভেতর। সেখানে আরও তিনজন সাধারণ মানুষ অবস্থান নিয়েছে। আশপাশের দোকানি বলে মনে হল তাদের। দোকানের সাটার আটকানো। ভয় হতে থাকে যদি এবার দোকানগুলোতে আগুন ধরিয়ে দেয়, তবে জীবন্ত দাহ হওয়ার বিকল্প নেই। একবার দোকানিকে জিজ্ঞাসাও করেছিলাম, এখান থেকে বের হওয়ার বিকল্প কোন পথ আছে কি না? তার উত্তর ছিল না। ১০ বাই ১০ একটা দোকানে সাধারণও দুইতিনটা গেট থাকেও না। এরমাঝে মোবাইল নেটওর্য়াকও পাচ্ছিলাম না তাই সবার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ। ঘন্টা খানেক পরে পুলিশের ধাওয়ায় বিক্ষুব্ধরা কিছুটা পিছু হটলে, ঐ দোকানিসহ আমরা বের হয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের দিকে দৌড়াই। 

র‍‍্যাবের অভিযান শুরু। বিক্ষুব্ধদের ছত্রভঙ্গ করতে সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করেও তাদের ছত্রভঙ্গ করা যাচ্ছে না। আমাদের নাইটএঙ্গেল মোড়ে থাকা সমকর্মী মেহেদী আল বাকারকে হেফাজত কর্মীরা ধরে ফেলে। সে সময় তাকে শর্ত জুড়ে দেয়, যেহেতু সাংবাদিক দেখলে পুলিশ টিয়ার সেল মারবে না। তাই তাকে সামনে থাকতে হবে। পিছনে পুলিশকে ধাওয়া করে পুরো এলাকা দখল নেবে তারা। পরে মেহেদী জানিয়েছিলেন, অনেক কৌশলে সে যাত্রায় বের হয়ে এসেছিলেন। সংঘর্ষ চলছে বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা। খবর পেলাম, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও দলের উর্ধ্বতনদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন। বিপরীতে দুই একটা রাজনৈতিক দল হেফাজতকে সমর্থন দিয়ে তাদের দলের নেতাকর্মীদের সহায়তা করার আহ্বান জানান। কঠিন হুশিয়ারি দেন আওয়ামী লীগের সেসময়ের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ। হেফাজত কর্মীদের বের করে দেয়ার নির্দেশ দেন। 

রাত দেড়টা থেকে আড়াইটার মধ্যে পল্টন এলাকায় র‍‍্যাব সদর দপ্তর থেকে আরও সদস্য পাঠানো হয়। আসে বিজিবির সদস্যরাও। রাতেই পুলিশের এক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলার জানতে পারি পল্টন, নয়াপল্টন, গুলিস্তান তিন দিকের পথ অবরোধ করে যাত্রাবাড়ি সড়ক দিয়ে ঢাকার বাইরে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা হয়েছে। সেই অভিযানের সময় দেখা যায়, সড়কের মাঝের গাছগুলো করাত দিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে। মতিঝিল পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন ভবনের সামনে পার্ক করে গাড়ি ও মোটর বাইকে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের কিছুই এই আগুন থেকে বাদ পরেছিল কি না, সন্দেহ আছে। সেদিন রাতের ফুটেজ অফিসে পাঠিয়ে দেয়ার পর সহকর্মী সুস্মিতা আনোয়ার সে নিউজ বানিয়েছিলেন। তার কিছুদিন আগেই তার বিয়ে হয়েছে সুস্মিতার। খুলনাতে থাকা তার শ্বশুড় বাড়ির লোকেরা সে নিউজ দেখে ভেবেসছিলেন পুত্র বধু এই হট্টগোলের মধ্যে গিয়েছেন। সঙ্গে সঙ্গে ফোন দিয়ে বসেন তার শ্বশুড়। জানতে চান, কেন এমন মারামারিতে তিনি গিয়েছিলেন? অবশ্য, পরে অফিসে বসে নিউজ বানানোর বিষয়টি জানার পর। মুরুব্বি ব্যক্তিটি আমাদের মাঠে কাজ করা রিপোর্টারদের বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে সুস্থতার জন্য দোয়া করেন। সেদিন এরকম অনেক শুভাকাঙ্খীর দোয়া বা আর্শিবাদ আমাদের জন্য ছিল। 

সে রাতে হেফাজতের শত শত কর্মী সমর্থক মাথার উপর দু’হাত তুলে লাইন ধরে পুলিশের কর্ডনের মধ্য দিয়ে ঐ এলাকা ছেড়ে যান। ভোর চারটা, তখনও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা থেমে ফাঁকা গুলি করেছে এবং তল্লাশি চালিয়েছে আশেপাশের ভবনগুলোতে। অভিযান শুরু হওয়ার পর হেফাজত কর্মীরা আশপাশের বিভিন্ন ভবনে আশ্রয় নেন। 

রাতেই মরদেহের সংখ্যা নিয়ে নানা ধরনের গুজব শুরু হয়। রাতের অভিযানে নিহতের সংখ্যা নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপক বিতর্ক দেখ দিয়েছিল। আড়াই হাজারের মতো নিহত হওয়ার অভিযোগ তুলছিল বিভিন্ন দল। পুলিশ বলেছিল, অভিযানের সময় আহত একজন পরে হাসপাতালে মারা গিয়েছিল। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, ৫ই এবং ৬ই মে দু’দিনে সারাদেশে ২৮ জনের নিহত হওয়ার কথা।

পুলিশের অভিযান চালানোর রাতেই, সে সময়ের হেফজতের আমির আহমদ শফী হুজুর লালবাগে ছিলেন। তাঁকে সেখান থেকেই পুলিশের কর্ডনের মাধ্যমে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তিনিও কর্মীদের মতিঝিল রেখেই চলে যান নিরাপদ আশ্রয়ে। এখানেও মনে প্রশ্ন জাগে, নেতা কিভাবে কর্মীদের ফেলে গেলেন? তবে, তার এই যাওয়ার ব্যবস্থা পুলিশ করেছিল এটা জানিয়েছিলেন, পুলিশের সে সময়ের অতিরিক্ত আইজিপি, পরবর্তিতে আইজিপি থেকে অবসরপ্রাপ্ত এ কে এম শহীদুল হক।

নিহতের তালিকা নিয়ে শুরুতে বিতর্ক শুরু হয় আলজাজিরার এক প্রতিবেদন থেকে। তবে, হেফাজতের সে সময়ের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এলে আমি তার কাছে নিহতদের তালিকা প্রকাশের বিষয়ে জানতে চেয়েছিলাম। তবে, তিনি কোন সংখ্যা বলেননি। এখানে আমার মনে হয়েছে, বিষয়টি নিয়ে হেফজতের ভেতরে রাজনীতি চলছে। আর এটি তারা রাজনৈতিক ভাবে ব্যবহার করতে চায়। যদিও তাদের দাবি, তারা অরাজনৈতিক সংগঠন। যে বিষয়টিতে শুরু দিকেই আলোচনা করেছি।

এরপরও হেফাজতের কয়েকটি কর্মসূচিতে তাদের রাজনৈতিক ইচ্ছা বা রাজনৈতিক ভাবে নানা কৌশল সামনে এসেছে। এ নিয়ে সংগঠনটির উর্ধ্বতনদের মতভেদও সবার সামনে এসেছে কয়েকটি ঘটনায়। তবে, মুসলিম সংখ্যা গরিষ্ঠ দেশে হেফাজতের ১৩ দফা কর্মসূচিগুলো ছিল ধর্মের ভিত্তিতে। এটাকেও অনেক সচেতন মহলই এক ধরনের রাজনীতি বলেন। তবে কি সংগঠনটির শীর্ষ মহলের রাজনৈতিক ইচ্ছা ছিল?

পরিশেষে তথ্য দেই, ২০১৩ সালে হেফাজতের তাণ্ডবের পর ৮৩টি মামলা দায়ের করা হয়। আর সারাদেশে হেফাজতের সহিংসতার পর প্রায় ১৪৩টি মামলা করা হয়।

 লেখক-সিনিয়র রিপোর্টার, দীপ্ত টেলিভিশন।

মতামত থেকে আরও পড়ুন

banglahour
সীমিত আয়ের মানুষ যাবে কোথায়?
ঈদের পর নতুন বেশ কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে

সর্বশেষ

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com